স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন

স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন

আসসালামু আলাইকুম। আমার প্রিয় বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন? আশা করি, মহান আল্লাহ তা-আলার রহমতে আপনারা সবাই ভালো আছেন। আজ আমি আপনাদেরকে উচ্চশিক্ষায় স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন সেই বিষয়ে কথা বলব। চলুন বন্ধুরা শুরু করি, স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন সেই বিষয়ে-

আমাদের দেশের অনেক শিক্ষার্থী  আছে যারা বাইরের দেশে গিয়ে উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হতে চায়। কিন্তু অর্থের অভাবে তারা তাদের সেই লক্ষ্যে পৌছাতে পারে না। এজন্য বিভিন্ন দেশ বা ইউনিভার্সিটি উচ্চশিক্ষায় বিভিন্ন স্কলারশিপ দিয়ে থাকে।

সেখানে যথাযথ তথ্য দিয়ে আবেদন করলেই আপনি উচ্চশিক্ষায় স্কলারশিপ টি পেয়ে যাবেন এবং আপনার উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার স্বপ্নটা বাস্তবায়িত হবে। কিন্তু অনেকের মনে প্রশ্ন আসে যে, আমি স্কলারশিপ টা কিভাবে পাবো। আর সেই স্কলারশিপ নিয়ে বিদেশে গিয়ে উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারবো।

কিন্তু আবেদন করার পর দেখি আমাদের স্কলারশিপ টা বাতিল হয়ে গিয়েছে। কিন্তু কি জন্য বাতিল হলো তা আমরা বুঝতেই পারি না। আমাদের সামান্য ভ্যলের কারনে বা ভুল চিন্তা ধারার কারনে আমাদের স্কলারশিপটা বাতিল বলে গণ্য হতে পারে।

আজকে আমরা জেনে নেবো কি কারনে আমাদের স্কলারশিপ বাতিল হয় অর্থাৎ স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন গুলো কি। চলুন জেনে নেয়া যাক-

উচ্চশিক্ষায় স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন

বর্তমান সময়ে যার কাছে যত বেশি তথ্য রয়েছে সে সবার থেকে তত বেশি এগিয়ে আছে। আপনার কাছে যদি কোন বিষয়ে তথ্য থাকে তাহলে সেই বিষয় সম্পর্কে আপনাকে ভুল কিছু বলে দিয়ে পথভ্রষ্ট করতে পারবে না। বা আপনার সেই কাজ করে দিয়ে টাকা নেয়ার মত কোন ফন্দি আটতে পারবে না।

কেননা আপনি নিজে সেই বিষয় সম্পর্কে অবিহিত। আমি আসলে স্কলারশিপ নিয়ে কথা বলছি। এই স্কলারশিপ নিয়ে অনেক রকমের ব্যবসা চলে। এই ব্যবসা চলার মুল কারণ আমাদের স্কলারশিপ নিয়ে যথেষ্ট জ্ঞান নেই। যার ফলে আমরা স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য বিভিন্ন এজেন্ট এর কাছে যাই।

আর তারা এই সুযোগটা নিয়ে বসে। আজকে আমি আলোচনা করবো যে কোন ভুল গুলো আপনি করছেন বা কিসের কারনে আপনি স্কলারশিপ টা পাচ্ছেন না। প্রথম ভুলটা আপনারা যেটা করে থাকেন যে মনে করেন স্কলারশিপটা খুবই ব্যয় বহুল। স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন এর প্রথম এটাই।

যেহেতু বাহিরে পড়াশুনাটাও খুবই ব্যয় বহুল সেহেতু আমাকে স্কলারশিপ পেতে হলে আমাকে অনেক টাকা খরচ করতে হবে। এই ধারনা যদি থাকে তাহলে আপনি খুবই বড় ভুলের মধ্যে আছেন। স্কলারশিপ নিতে আপনাকে বেশি টাকা খরচ করতে হবে না।

অল্প কিছু টাকা খরচ করলে আর আপনার দেয়া তথ্য যদি ঠিক থাকে তাহলে আপনি আপনার কাংক্ষিত স্কলারশিপ পেয়ে যাবেন। আর আপনার পছন্দের বিষয়ের উপর উচ্চশিক্ষা নিয়ে দেশে এসে দেশের জন্য কিছু করতে পারবেন।

মুল কথা হলো আপনার স্কলারশিপের জন্য খুব বেশী টাকা লাগবে না যেটা লাগবে সেটা আপনার তথ্য। আর আপনার সবচেয়ে বড় দুর্বলতা হলো আপনি স্কলারশিপ নিয়ে তেমন কিছু জানেন না। তাই আপনি স্কলারশিপ নিতে হলে যেসব তথ্য দিতে হয় সে সব তথ্য জোগাড় করতে ব্যর্থ হন।

আপনি মনে করেন যে, স্কলারশিপ পাওয়া টা বুঝি খুবই কঠিন। বাইরের দেশে এমন স্টুডেন্ট আছে যারা সিজিপিএ তে অনেক কম কিন্তু তবুও তারা স্কলারশিপ পেয়েছে। আর আমাদের দেশে অনেক স্টুডেন্ট আছে যাদের সিজিপিএ খুব ভালো তবুও স্কলারশিপ পায় নি। স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন হিসেবে ধরতে পারি স্কলারশিপ সম্পর্কে সঠিক না জানা।

এর বড় কারন হলো যে তারা স্কলারশিপ এর সকল তথ্য যথাযথ ভাবে দিয়েছে। আর যার সিজিপিএ ভালো সে সেই তথ্য ঠিকভাবে দিতে পারে নাই। একাডেমিক রেজাল্ট দিয়ে শুধু স্কলারশিপ হয় না। এক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজন হয় বিভিন্ন তথ্যের।

আর যারা কম রেজাল্ট নিয়ে স্কলারশিপ পেয়েছে তারা জানে যে কোন উপায়ে স্কলারশিপ পেতে হয় আর তারা সেটাই চেষ্টা করেছে আর দিনশেষে তারা সফল ও হয়েছে। অনেকেই আছেন যারা মনে করেন যে স্কলারশিপ কিনতে পাওয়া যায়।

চীনের স্কলারশিপের ক্ষেত্রে মানুষ এটা সব থেকে বেশি মনে করে। আর দালালরা এই ভুল ধারনাকে পুজি করে বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে যার ফলে আপনার পরিবার অনেক চাপের মধ্যে পড়ে যায়। একটা জিনিস মনে রাখবেন স্কলারশিপ কখনো কেনা যায় না।

এটা আপনাকে অর্জন করে নিতে হবে আপনার যোগ্যতা দিয়ে। আপনার রেজাল্ট যদি ভাল থাকে তাহলে আপনি স্কলারশিপ পাবেন। আপনি নিজেই স্কলারশিপের যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন কোন দালাল ছাড়া। দালাল আপনাকে বলে যে স্কলারশিপ কেনা যায়।

আর আপনার সমস্ত কাগজপাতি নিয়ে সেই দালাল নিজে এপ্লাই করে দেয়। আর আপনি যদি স্কলারশিপের জন্য উপযুক্ত হন তাহলে আপনি স্কলারশিপটা পেয়ে যান। এখানে পুরো ক্রেডিট কিন্তু আপনার আপনি আপনার যোগ্যতার কারনে স্কলারশিপ টা পেয়েছেন।

কিন্তু এক্ষেত্রে ক্রেডিট টা চলে যায় দালালের কাছে। আর আপনি সেই দালালকে অনেক বেশি টাকা দিয়ে ফেলেন। স্কলারশিপ সম্পর্কে সম্পুর্ণ ধারনা থাকলে আপনি নিজে সেই স্কলারশিপের জন্য আবেদন করতে পারতেন। স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন হল নিজে সঠিক কিছু না পাওয়ার জন্য।

স্কলারশিপ না পাওয়ার ক্ষেত্রে সব থেকে বড় ভুল হল আপনারা আপডেটেড না। আপনারা তথ্যের সাথে আপডেট না। হয়তো বা আপনারা প্রচুর সময় ধরে ফেসবুক ইউটিউব চালান কিন্তু যেখানে গেলে আপনারা সঠিক তথ্য পাবেন স্কলারশিপ সম্পর্কে সেখানে আপনারা যান না।

আসলে তথ্যের প্রবাহ টা রয়েছে কিন্তু আপনারা সেই তথ্য পর্যন্ত পৌছাতে পারছেন না। আবার এমন ও অনেক হয়েছে যে স্কলারশিপের জন্য আবেদন করেছে। সে ইমেইলের সাথে বা প্রফেসরদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগের অভাবে অর্থাৎ আপডেট নয় বলে সে তার স্কলারশিপ টা আর পায় নি।

এটা খুব বড় একটা ভুল যে আবেদন করেছে কিন্তু কিন্তু সে সম্পর্কে কোন আপডেট তথ্য রাখে নি। আর সে কারনেই সে মিছ স্কলারশিপ করেছে। এই আপডেটের বিষয়টা মাথায় রাখতে হবে।

আপনাদের আরো বড় ভুল হলো যে আপনারা বিদেশে গিয়ে পড়াশুনার চেয়ে জব করা অথবা টাকা উপার্জন করাকে বেশি প্রাধান্য দেন। আরো আছে যে পড়াশুনা শেষে জব পাবো কিনা সেই টেনশনে মাথা খারাপ হয়ে যায়।

আপনার যদি যোগ্যতা থাকে আর আপনি যদি ঠিক ঠাক ভাবে গ্রাজুয়েশন শেষ করেন তাহলে আপনি জব এর অভাব হবে না। এটাই হওয়া স্বাভাবিক। আর এটা বাস্তব একটা কথা। কেননা যে যোগ্য না সে কেন চাকরি পাবে। আসলে সবার মাথায় এইসব চিন্তা ভাবনা আসে।

যখন আমার পড়াশুনা ও স্কলারশিপ শেষ হয়ে যাবে তখন আমি কি করবো? চাকরি পাবো তো? এই সব প্রশ্ন মাথায় আসা স্বাভাবিক। আসলে এই সব ভুল ধারনা ছিল। আপনারা কোন ভাবে এই সব চিন্তা মাথায় নিবেন না। বাইরের দেশে হাজার হাজার শিক্ষার্থীরা চাকরি করছে তাদের গ্রাজুয়েশন শেষ করে। স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন অনেকটা চিন্তাভাবনা।

আপনার ও যদি যোগ্যতা থাকে তাহলে আপনিও জব পাবেন। আজকের আলোচনাই ছিল স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন কোন ভুল গুলো আপনারা করে থাকেন। আর আপনাদের মাথায় যে সব ভুল ধারনা আছে সেগুলোকে উপেক্ষা করে চলবেন। আপডেটেড থাকবেন, তথ্যের সাথে থাকবেন, নিজেই তাহলে যথেষ্ঠ হবেন একটা স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য। তাহলে কোন মানুষ ধাপ্পা বাজি করে আপনার কাছ থেকে টাকা নিতে পারবে না।

আশা করি আজকের আলোচনা উচ্চশিক্ষায় স্কলারশিপ না পাওয়ার কারন আপনাদের ভালো লেগেছে। আপনাদের মুল্যবান মতামত কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ বন্ধুরা।