দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ – বিস্তারিত

0
168
দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ- বিস্তারিত
দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ- বিস্তারিত

আসসালামু আলাইকুম বন্ধুরা। আপনারা সবাই কেমন আছেন? আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন। আজকে আমি আলোচনা করবো এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণ কোরিয়া গ্লোবাল স্কলারশিপ নিয়ে। অনেকেই আছেন দক্ষিন কোরিয়ায় গ্লোবাল স্কলারশিপ নিতে চাচ্ছেন কিন্তু সঠিক তথ্যের অভাবে আপনি আবেদন করতে পারছেন না। আজকে আমি দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ এর সব তথ্য নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। চলুন শুরু করা যাক আজকের আলোচনা –

উচ্চশিক্ষার জন্য আপনি কোন দেশে যাবেন এটা খুবই গুরুত্বপুর্ণ একটা সিদ্ধান্ত। এই সিদ্ধান্ত আপনাকে ভেবে চিনতে নিতে হবে কেননা এর উপর আপনার ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে। আর পৃথিবীর এত সব দেশের ভিতর থেকে একটি দেশ নির্বাচন করা খুবই কঠিন। কেননা পড়ালেখার মান, জীবনযাত্রা, আবাসন ব্যবস্থাসহ অন্যান্য বিষয় সব দেশে এক রকম হয় না। তাছাড়া শিক্ষার্থীদের একাডেমিক রেজাল্ট এবং আর্থিক অবস্থাও মুখ্য বিষয় হিসেবে বিবেচিত করতে হয়।

উচ্চশিক্ষার জন্য দক্ষিন কোরিয়া হতে পারে আপনার জন্য ভাল একটা দেশ। যেখানে আপনি সব ধরনের সুযোগ সুবিধা। দক্ষিন কোরিয়ায় রয়েছে অনেক ভাল মানের বিশ্ববিদ্যালয়। সে সব বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়ার্ল্ড র‍্যাংকিং এ প্রথম সারিতে রয়েছে। তাছাড়াও প্রযুক্তি কিংবা বাণিজ্য সবক্ষেত্রেই দক্ষিণ কোরিয়া শীর্ষে অবস্থান করছে। আর আপনি যদি এই দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ মাধ্যমে উচ্চশিক্ষা লাভ করেন তাহলে তো কোন কথাই নেই। আজকে আমরা জানবো কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ নিয়ে।

দক্ষিণ কোরিয়া নিজেদের শিক্ষাব্যবস্থাকে বহিঃবিশ্বে পরিচিতি বাড়ানোর জন্য প্রতি বছর দক্ষিণ কোরিয়া গ্লোবাল স্কলারশিপের আয়োজন করে থাকে। দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ বাংলাদেশসহ মোট ৬৭ টি দেশের শিক্ষার্থী এই স্কলারশিপের জন্য আবেদন করতে পারে। এই স্কলারশিপ ও দুটি উপায়ে আবেদন করা যায়। প্রথমত বাংলাদেশে অবস্থিত কোরিয়ান এম্বাসি ট্রাক মাধ্যমে আর একটি উপায় হলো ইউনিভার্সিটি ট্রাক এর মাধ্যমে।

এম্বাসি ট্রাকের মাধমে গ্লোবাল স্কলারশিপ আবেদনঃ

এমব্যাসি ট্র্যাক এর মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ এর জন্য আপনার পছন্দ অনুযায়ী সর্বোচ্চ তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি করে মোট তিনটি প্রোগ্রামে আবেদন করা যাবে। এছাড়া ন্যাচারাল সায়েন্স এবং ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়গুলোর জন্য আবেদন করা যাবে। কিন্তু মেডিসিন, ডেন্টিস্ট্রি, আর্কিটেকচার এবং ফার্মেসির জন্য আবেদন করা যাবে না। এমব্যাসি ট্র্যাকে প্রোগ্রামে আবেদন করতে কোনো আবেদন ফি নেই।

দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ এর সুবিধাঃ

  • টিউশন ফি সম্পূর্ণ ফ্রি
  • এয়ার টিকেট( কোরিয়ায় আসার জন্য আর প্রোগ্রাম শেষে দেশে যাওয়ার সময়)
  • সেটেলমেন্ট এর জন্য আপনাকে প্রায় ২০০০০০(দুই লক্ষ)ওন দেয়া হবে। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১৪০০০(চৌদ্দ হাজার) টাকা
  • প্রতি মাসে আপনাকে পড়াশুনার জন্য গ্লোবাল স্কলারশিপ ৯০০০০০( নয় লক্ষ )ওন দেবে। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৬৫০০০(পয়ষট্টি হাজার)টাকা।
  • রিসার্চ এর পর থিসিস এর জন্য আপনাকে অর্থ দেয়া হবে।
  • মেডিকেল খরচ এর জন্য আপনাকে টাকা দেয়া হবে।
  • ডিগ্রি শেষ হবার পর আপনি চাইলে কোরিয়ায় থেকে যেতে পারেন অথবা অন্য কোন কোর্স এর আবেদন করতে পারবেন। যদি দেশে ফেরেন তাহলে আপনাকে বাংলাদেশি ৭০০০ টাকা দেয়া হবে।
  • বিনামূল্যে ১ বছর কোরিয়ান ভাষা শেখার সুযোগ।

গ্লোবাল স্কলারশিপ আবেদন করতে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টঃ

  • বৃত্তির আবেদন ফর্ম
  • SSC Mark sheet
  • SSC Certificate
  • HSC Mark sheet
  • HSC Certificate
  • রিকোমেন্ডেশন লেটার দুইটি দুইজন প্রফেসর এর কাছ থেকে নিতে হবে। আলাদা আলাদা খামে সিল মারা হতে হবে।
  • পাসপোর্ট
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স
  • মেডিকেল রিপোর্ট
  • জাতীয় পরিচয়পত্র ও জন্ম সনদ
  • স্টাডি প্লান।
  • ইংরেজি ভাষা দক্ষতার সনদ ( থাকলে আপনার জন্য খুবই ভালো )

দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ আবেদনের যোগ্যতাঃ

  •  আবেদনকারীর এইচএসসিতে ৮০ শতাংশ নাম্বার থাকতে হবে।
  • আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী হতে হবে। কোরিয়ান নাগরিকত্বধারী প্রার্থীর ক্ষেত্রে অবশ্যই কোরিয়ার বাইরে পড়ালেখা থাকতে হবে।
  • স্নাতকে আবেদনকৃতদের বয়স কমপক্ষে ২৫ বছর এবং স্নাতকোত্তরে আবেদনকারীর বয়স ৪০ বছরের বেশি হওয়া যাবে না।
  • শারীরিক ও মানসিক এই দুই দিক দিয়েই সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে হবে।
  • এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাড়তি কোনো রিকোয়ারমেন্ট থাকলে তা আপনাকে পূরণ করতে হবে।

উপরে আলোচিত প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট গুলো ফটোকপি করে নিয়ে সুন্দর ভাবে সাজিয়ে একটি খামে ভরতে হবে। এরকম আরো তিনটি খাম তথা মোট চারটি খামে ভরে দিতে হবে। এবার চারটি খাম একটি খামে রেখে সেগুলো কোরিয়ান এম্বাসিতে জমা দিতে হবে। কোন ডমুমেন্ট বাংলায় থাকলে তা ইংরেজিতে অনুবাদ করে নোটারি করতে হবে। সব গুলো ডকুমেন্ট রঙ্গিন ফটোকপি করে খামে ভরতে হবে।

ডকুমেন্ট যে ঠিকানায় জমা দিবেন,

Embassy of the Republic of Korea
4 Madani Avenue Baridhara,
Dhaka-1212, Bangladesh

বন্ধুরা আজকের আলোচ্য বিষয় দক্ষিণ কোরিয়ার গ্লোবাল স্কলারশিপ কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে আমাদের জানাবেন।

উচ্চশিক্ষার যে কোন বিষয়ে পড়তে নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে।