উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো

0
226
উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো
উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো

আমরা উচ্চ শিক্ষার জন্য অনেকেই বাইরের দেশে যাই। কিন্তু উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো তা আমরা অনেকেই জানি না। বর্তমান সময়ে উচ্চ শিক্ষার জন্য বাইরে যাওয়ার প্রবণতা আরো বেড়ে গেছে। সবাই সময়ের সাথে সাথে উচ্চ শিক্ষার মান ও আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে আকড়ে ধরতে চাচ্ছে। যার ফলেই উচ্চশিক্ষার জন্য বাইরের দেশে যাওয়ার আগ্রহ সবার মনে জন্মে।

কোন দেশ উচ্চশিক্ষার জন্য ভাল

আমরা উচ্চশিক্ষার জন্য বাইরে যেতে চাই। কিন্তু আমরা দেশ সিলেকশন এর ক্ষেত্রে গিয়ে অনেক ভুল করে বসি। যার ফল স্বরুপ আমাদের বিভিন্ন পাশ্বে ক্ষতি হয়ে যায়। আমাদের মনে প্রশ্ন আসে উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো কোন দেশ আমার উচ্চশিক্ষার জন্য সবচেয়ে ভাল হবে। আরো অনেক প্রশ্ন থাকে কোন দেশে আইইএলটিএস লাগে, কোথায় পার্ট টাইম জব পাওয়া যায়।

কোথায় যেতে খরচ কম লাগবে। আজকে সব প্রশ্নের উত্তর আপনাদের দেবো আর এই সব নিজের সাথে মিলিয়ে আপনি খুব সহজে আপনার পছন্দের দেশে গিয়ে উচ্চ শিক্ষা নিতে পারবেন। তাহলে কথা না বাড়িয়ে চলুন আজকের আলোচনা শুরু করা যাক-

হোমসিক হলে কোন দেশ ভাল

আপনি যদি হোমসিক হয়ে থাকেন অর্থাৎ বাড়ির লোকেদের প্রতি আপনার মায়া বেশি থাকে। আপনি যদি বাইরে গিয়ে থাকতে না পারেন তাহলে আপনি হোমসিক। আর আপনি যদি হোমসিক হয়ে থাকেন আর ভাবেন উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো তাহলে আপনার এমন দেশ সিলেক্ট করতে হবে। যেখানে আপনি খুব সহজে আসতে যেতে পারবেন।

এই ক্ষেত্রে আপনি এশিয়ান দেশ নির্বাচন করতে পারেন বাংলাদেশিদের জন্য ইন্ডিয়া আর চায়না আপনি নির্বাচন করতে পারেন। কারন এই দেশ দুটো খুব কাছে আর এখানে ভালো মানের বিশ্ববিদ্যালয় আছে।

আর খুব কম সময়ের মধ্যে এক দেশ থেকে অন্য দেশে যাতায়াত করা যায়। এই ক্ষেত্রে আপনি এশিয়ান দেশ গুলো নির্বাচন করতে পারেন যদি আপনি হোমসিক হয়ে থাকেন।

ভবিষ্যত পরিকল্পনার জন্য কোন দেশ ভাল

আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনার সাথে যে দেশের মিল আছে বা সেখানে গিয়ে বাস্তবায়ন হবে আপনাকে সেই ধরনের দেশ নির্বাচন করতে হবে। আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা যদি হয় পারমানেন্ট রেসিডেন্ট বা সেখাইনেই সেটেল্ড হওয়া তাহলে আপনাকে সেই সমস্ত দেশে গিয়ে পড়া শুনা করতে হবে।

যেখানে খুব সহজেই নাগরিকত্ব প্রদান করে সমস্ত সুযোগ সুবিধা প্রদান করে থাকে।  permanent resident এর জন্য কানাডা অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে এই permanent residential এর সুযোগ রয়েছে।

আপনার প্লান যদি থাকে আপনি ভবষ্যতে ঐ দেশেই থেকে যাবেন আর আপনি ভাবেন উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো তাহলে এইসব দেশ নির্বাচন করতে পারেন। এই সব দেশ ছাড়াও আরো অনেক দেশ আছে যারা নাগরিকত্ব প্রদান করে থাকে যদি আপনি নিজ দেশে আর ফিরে না আসেন।

আপনি একটু খুজে দেখতে পারেন তবে এই সব দেশ permanent residential এর সুযোগের দিক থেকে প্রথম সারিতে আছে। এই সব দেশে নাগরিক হবার যে ব্যপারটা সেটা খুব সহজেই হয়ে থাকে। তার মানে এই না যে আপনি গেলেন আর আপনাকে নাগরিকত্ব দিল। তবে অন্যান্য দেশের তুলনায় এই সব দেশে permanent residential পাওয়া খুব সহজ।

পার্ট টাইম জবের জন্য কোন দেশ ভাল

বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য গেলে সবার সবথেকে ফোকাসে থাকে যে ব্যাপারটা সেটা হলো পার্ট টাইম জব বা শিক্ষার পাশাপাশি কিছু ঘন্টা কাজ করা। এটা খুবই সাধারণ যে আমাদের বাংলাদেশ থেকে বা ওয়েস্ট বেঙ্গল থেকে যারা উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশে যান তাদের মাথায় থাকে যে ফ্যামিলিকে সাপোর্ট করা বা নিজেকে সাপোর্ট করা অথবা নিজের পড়াশুনার খরচ টা তোলা এই জবের মাধ্যমে।

এর এজন্য তাদের মাথায় পার্ট টাইম জব এর পরিকল্পনা থাকে। পার্ট টাইম জব এর কথা যদি বিবেচনা করা হয় তাহলে যে সব দেশ আপনাকে উপেক্ষা করতে হবে প্রথম চীন। কারন চীনে করা যায় না। এখানে অন্যান্য অনেক ছোট খাটো কাজ করা যায়।

কিন্তু অন্য দেশের মত এই দেশে করা যায় না। তাই আপনাকে চীন দেশ বাদ দিয়ে দিতে হবে উচ্চ শিক্ষার জন্য। পার্ট টাইম জবের জন্য আপনার উচ্চশিক্ষার জন্য দেশ হতে পারে আপনার গন্তব্য তা হল কানাডা। খুবই ভাল একটা দেশ এখানে পার্ট টাইম জব করার অনেক সুযোগ রয়েছে।

জার্মানি হতে পারে কিন্তু জার্মানিতে ভাষা টা লাগবে। এছাড়া উচ্চশিক্ষার জন্য আছে অস্ট্রেলিয়া , আমেরিকা , ইংল্যান্ড এছাড়া ইউরোপের অন্যান্য দেশ ভাল হবে। আপনি কোরিয়াতে কাজ করতে পারবেন কিন্তু তাদের লিমিটেড টাইম রয়েছে। এর বেশি আপনি কাজ করতে পারবেন না।

জাপানেও ছোট খাটো আকজ করা যায় নির্ধারিত সময় এর মধ্যে। সাধারণত সপ্তাহে ২০ ঘন্টা আপনি কাজ করতে পারবেন ইউরোপের দেশ গুলোতে। আপনি যদি পড়াশুনার পাশাপাশি পার্ট টাইম জব করতে চান তাহলে এই সব দেশ নির্বাচন করুন।

আপনি যদি উচ্চশিক্ষার জন্য ইন্ডিয়াতে যেতে চান বা চীনে যেতে চান আর আপনার পরিকল্পনা যদি থাকে আপনি পার্ট টাইম জব করবেন তাহলে আপনাকে এখানে এসে অনেক ঝামেলায় পরতে হবে কেননা এসব দেশে সেভাবে শিক্ষার্থীদের পার্ট টাইম জবের সুযোগ দেয়া হয় না।

এক্ষেত্রে আপনি খুজে দেখবেন কোন কোন দেশে পার্ট টাইম জব করা যায় আর যায় না। আপনি সেসব দেশ আপনার জন্য নির্বাচন করবেন।

কম খরচের জন্য কোন দেশ ভাল

কোন একটা দেশে উচ্চশিক্ষা নিতে যাওয়ার জন্য সেখানে থাকার খরচ কেমন বা খাওয়ার খরচ কেমন এসব সম্পর্কে ধারনা থাকতে হবে। স্কলারশিপ পেলে সেক্ষেত্রে অন্য কথা কিন্তু আপনি যদি স্কলারশিপ না পান তাহলে যে ইউনিভার্সিটিতে পড়বেন সেখানে টিউশন ফি কেমন বা সেখানী যেতে ব্যাংক একাউন্ট এ টাকা দেখাতে হবে কিনা।

যেমন ধরেন জার্মানিতে উচ্চশিক্ষার জন্য আপনাকে ব্যাংক একাউন্টে ১২ লক্ষ টাকা দেখাতে হয়। নরওয়েতেও উচ্চশিক্ষার যেতে ব্যাংক একাউন্টে টাকা দেখাতে হয়। এই জিনিস টা খুব করে মাথায় রাখবেন যে কোন দেশে যেতে তার সামগ্রিক খরচ কত টাকা।

এছাড়া আরো অনেক দেশ আছে যেখানে উচ্চশিক্ষার জন্য এর থেকে আরো বেশি টাকা লাগতে পারে। এই সব দেশে ব্যাচেলর দের জন্য খুবই সীমিত আকারে স্কলারশিপ দিয়ে থাকে কিন্তু পি এইচ ডি এর ক্ষেত্রে এসব দেশ অনেক স্কলারশিপ দিয়ে থাকে।

স্কলারশিপ পেয়ে গেলে আপনাকে সেভাবে টাকা দেখাতে হবে না। আমেরিকা ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ এই ক্যাটাগরিতে রয়েছে। যেসব দেশে টাকা পয়সার তেমন দরকার হয় না বা দেখানোর ঝামেলা নেই সেগুলো মধ্যে চীন অন্যতম।

এখানে আপনি মোটামুটি খালি পকেট নিয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য আসতে পারবেন। ইন্ডিয়া রয়েছে এবং এর যে স্কলারশিপ আছে আপনি পেয়ে গেলে তেমন কোন টাকা পয়সা লাগবে না। কোন টাকা ছাড়াই শুন্য পকেটে আপনি ইন্ডিয়ায় পড়াশুনার জন্য যেতে পারবেন।

কোন দেশে আইইএলটিএস ( IELTS) কত

আপনি যে দেশে যাবেন বা যে ইউনিভার্সিটিতে যাবেন সেখানকার চাহিদাপত্রে যদি টেস্ট থাকে তাহলে আপনাকে এই সব অনেক আগে থেকে প্রিপারেশন নিতে হবে। এবং অবশ্যই আপনাকে GRE/ IELTS/ TOFEL এর জন্য অনেক আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে।

শুধু হুঠহাট করে সিদ্ধান্ত নিলে হবে না আপনাকে সময় নিতে হবে। এক্ষেত্রে GRE এর কথা যদি বলা হয় তাহলে বলবো GRE আমেরিকার ইউনিভার্সিটিগুলোর জন্য লাগে। এছাড়া ফুল ফান্ডের জন্য GRE কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি গুলোতে প্রয়োজন পরে।

অস্ট্রেলিয়ান ইউনিভার্সিটি গুলোতে উচ্চশিক্ষার জন্য অনেক সময় লাগে। কিন্তু খুবই গুরুত্বপুর্ণ কেননা প্রায় বিশ্বের সব ইউনিভার্সিটি গুলোতে এই IELTS স্কোর লাগে। আর ভাল স্কলারশিপের জন্য আপনাকে অবশ্যই এই IELTS স্কোর ভাল থাকতে হবে।

আমি যদি চীন দেশ এর কথাই বলি তাহলে চায়নাতে অনেক স্কলারশিপ রয়েছে যেখানে IELTS লাগে না কিন্তু সবার IELTS থাকলে ভাল হয়। আপনাকে খুজে দেখতে হবে কোথায় কোথায় GRE/ IELTS/ TOFEL লাগে আর কোথায় লাগে না।

আপনি এভাবে দেখেও আপনার পছন্দের দেশ বা ইউনিভার্সিটিতে পড়তে পারবেন। দেশ নির্বাচন খুবই গুরুত্বপুর্ণ একটি জিনিস। উপরোক্ত আলোচনা গুলো মাথায় নিয়ে আপনি উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো তা নির্বাচন করলে আপনি কোন সমস্যার সম্মুখীন হবেন না।

তাই সময় নিয়ে ভেবে চিনতে নিজের জন্য মানানসই একটি দেশ নির্বাচন করুন যাতে করে আপনি সফল হন। আপনার সাফল্যই আমাদের কাম্য।